বাংলা তাফসীর

সূরাঃ আল-ফাতিহা - ৫

Alorpath 5 months ago Views:201

সূরাঃ আল-ফাতিহা অনুবাদ ও তাফসির- তাফসীরে জাকারিয়া


সূরাঃ আল-ফাতিহা - ৪

. আমরা শুধু আপনারই ইবাদাত() করি() এবং শুধু আপনারই সাহায্য প্রার্থনা করি(),

. ইবাদত কথাটি শ্রবনের সঙ্গে সঙ্গে কয়েকটি কথা মনের পটে জাগ্রত হয় প্রথম এই যে, যে বন্দিগি স্বীকার করেছে সে বান্দা ছাড়া আর কিছুই নয়, বান্দা হওয়া বান্দা হয়ে থাকাই তার সঠিক মর্যাদা দ্বিতীয় এই যে, এমন একজন আছেন যাঁর বন্দেগী করা হচ্ছে, যার বান্দা হয়ে থাকা সম্ভব হচ্ছে তৃতীয়, যার বন্দেগী করা হচ্ছে, তার তরফ হতে নিয়ম বিধি বিধান নাযিল হচ্ছে এবং যে বন্দেগী করছে, সে তাঁকে স্বীকার করার সঙ্গে সঙ্গে তার বিধানকেও পুরোপুরি মেনে নিচ্ছে আর চতুর্থ এই যে, কাউকেও মাবুদ বলে স্বীকার করা এবং তাঁর দেয়া দেয়া বিধি বিধান পালন করে চলার একটি অনিবার্য ফলাফল রয়েছে, যে ফলাফলের দিকে লক্ষ্য রেখেই বন্দেগীর কাজ করা হচ্ছে ইবাদতের পূর্ণাঙ্গ ভাবধারায় ইবাদত-বন্দেগী করা; আনুগত্য করা, আদেশ নিষেধ মেনে চলা এবং বান্দা হয়ে থাকা, বান্দা হওয়ার লক্ষ্যে কথা কয়টি অবশ্যই স্পষ্ট হতে হয়

মূলত ইবাদত শব্দের অর্থ আরও গভীরভাবে চিন্তা করার অবকাশ রয়েছে ইবাদত উবুদিয়াত শব্দের আভিধানিক অর্থ হচ্ছে الذلة বা অবনতি স্বীকার, দলিত মথিত হওয়ার হওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকা পরিভাষায় শব্দটি দ্বারা যদি فعل العابد দাসের কাজ বা কিভাবে দাস তাঁর দাসত্ব বা ইবাদত করবে সেটা উদ্দেশ্য হচ্ছে তখন এর সংজ্ঞা হচ্ছে, ما يجمع كمال المحبة এমন কোন কিছুর নাম যাতে পরিপূর্ণ ভালোবাসা বিনয় ভীতি এসব কয়েকটি ভাবধারা সমন্বিতভাবে পাওয়া যায় [ইবনে কাসির] পক্ষান্তরে যদি ইবাদত বলতে المتعبد به 'কিসের মাধ্যমে ইবাদত করতে হবে' সেটা উদ্দেশ্য হয় তখন তার সংজ্ঞা হচ্ছে, اسم جامع لكل ما يحبه الله ويرضاه من الأقوال والأفعال الظاهرة والباطنة আল্লাহ যা পছন্দ করেন ভালবাসেন এমন প্রত্যেকটি প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য কথা কাজের নাম হচ্ছে ইবাদাত [মাজমু ফাতাওয়া]

সুতরাং কোন কিছু আল্লাহর দরবারে ইবাদত হিসেবে কবুল হওয়ার জন্য দুটি শর্ত অবশ্যই থাকবে প্রথমতঃ সেটা একমাত্র আল্লাহর উদ্দেশ্যেই হতে হবে তাতে থাকবে পরিপূর্ণ ভালোবাসা, বিনয় ভীতি যাকে ইখলাস বলা হয় দ্বিতীয়তঃ সেটা হতে হবে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রদর্শিত পদ্ধতিতে প্রকাশ্য-অপ্রকাশ্য কোন কথা কাজ আল্লাহর কাছে প্রিয় তিনি পছন্দ করেন সেটা একমাত্র রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মাধ্যমে আমরা লাভ করেছি সুতরাং কোনো কাজ ইবাদত হিসেবে পরিগণিত হওয়ার জন্য দ্বিতীয় শর্তটি অবশ্যই পাওয়া যেতে হবে মূলত এই আয়াতগুলোতে ইসলামের মূল কালেমা لا اله الا الله এর তত্ত্বমূলক অর্থ প্রকাশ করা হয়েছে এক কথায় আয়াতের অর্থ ইবাদত কেবল আল্লাহরই করব, মা'বুদ কেবল তাকেই বানাব, তিনি ছাড়া আর কারও দাসাওত্ব কবুল করব না [আদওয়াউল বায়ান]

. আল্লাহ তাআলার পূর্বোল্লিখিত গুণাবলীর প্রতি যাদের ঈমান স্থাপিত হয়, যারা আল্লাহকে একমাত্র ইলাহ, সৃষ্টি জগতের একচ্ছত্র রব্ব্, আর রহমান, আর রহীম বিচার দিনের অপ্রতিদ্বন্দ্বী অধিপতি বলে মেনে নেয়, তাদের পক্ষে সেই আল্লাহর পরিপূর্ণ দাসত্ব কবুল করা- কেবল তারই ইবাদাত, আনুগত্য আদেশ পালন করা ছাড়া যেমন কোন উপায়ই থাকতে পারে না, তেমনি এটা ব্যতীত তাদের জীবনে আর কোন কাজ বা উদ্দেশ্য থাকতে পারে না মূলত সেই উদ্দেশ্যেই মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে আল্লাহ তাআলা অন্যত্র ঘোষণা করেনঃ "মানুষ জিন্ন জাতিকে এই উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করেছে যে তারা (স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে) কেবল আমারই দাসত্ব বন্দিগী করবে [সূরা আয যারিয়াতঃ ৫৬] অর্থাৎ আল্লাহর দাসত্ব আনুগত্য করাই হচ্ছে মানব সৃষ্টির উদ্দেশ্য মানুষের জীবনের উদ্দেশ্য লক্ষ্য আল্লাহর দাসত্ব আনুগত্য করা ছাড়া আর কিছুই নেই-হতে পারে না একমাত্র আল্লাহর দাসত্ব স্বীকার করার অর্থ, মানুষ নিজেকে একমাত্র আল্লাহর মালিকানাধীন সত্তা স্বীকার করবে নিজকে তার খাঁটি দাস বানিয়ে নেবে


অতএব মানুষ নিজে মা'বুদ বা পূজ্য-উপাস্য-আরাধ্য সার্বভৌম হতে পারে না, অধিকার একমাত্র আল্লাহর মানুষ যদি আল্লাহকে বাদ দিয়ে অন্য কোন সত্তার পূজা-উপাসনা করে, মূল সৃষ্টি কার্যে কিংবা বিশ্ব-পরিচালনা রিযিকদান সৃষ্টির হেফাজতের ব্যাপারে আল্লাহ ছাড়া বা আল্লাহর সাথে অন্য কোনো শক্তিকে স্বীকার করে, তবে তা আকিদা বিশ্বাসের দিক দিয়ে সুস্পষ্টভাবে শির্ক হবে পক্ষান্তরে এসব দিক দিয়ে একমাত্র আল্লাহকে স্বীকার করলেও মানুষের বাস্তব জীবন ক্ষেত্রে সার্বভৌম শক্তি প্রয়োগের ক্ষেত্রে যদি মেনে নেয়া হয় আল্লাহ ছাড়া অপর কোন শক্তিকে-কোন পীর-আলেম, কোন নেতা, সমাজপতি, কোন বিচারক রাষ্ট্রপ্রধানকে, তবে তাতেও অনুরূপভাবে শির্ক হবে, আল্লাহর ইবাদত কিছুমাত্র আদায় হবে না কেননা মানুষকে যে ইবাদতের উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করা হয়েছে, তা কেবল হৃদয়গত বিশ্বাস ইবাদত বন্দেগীর অনুষ্ঠানে হাজির হতে পারে না; কারণ কেবল এর নাম ইবাদত নয় ইবাদতের কাজে বিশ্বাস করা মেনে নেয়ার সাথে ইবাদত-বন্দেগীর পরও বাস্তব আনুগত্য অনুসরণ করার ব্যাপারটি পুরোপুরি রয়েছে কাজেই এর একাংশের কাজ আদায় করলে তাতে আল্লাহর উদ্দেশ্য হাসিল হতে পারে না এরূপ করলে আল্লাহ্র পক্ষ থেকে তাঁর সম্মুখে কঠিন প্রশ্ন উপস্থাপিত হবে, "তোমরা কি আল্লাহর কিতাবের একাংশে ঈমান আনো আর অপর অংশে কর কুফুরী? অতঃপর তোমাদের মধ্য থেকে যারাই এরূপ করবে, তাদের একমাত্র শাস্তি তো এই যে, দুনিয়ার জীবনে তাদের অপরিসীম লাঞ্ছনা গঞ্জনা হবে এবং কিয়ামতের দিন তাদেরকে কঠিনতম আজবের দিকে নিক্ষেপ করা হবে আর আল্লাহ তোমাদের কাজকর্ম সম্পর্কে বাস্তবিকই বে-খবর নন [সূরা আল-বাকারাঃ ৮৫]

. মানুষ স্বভাবতই দুর্বল তার ক্ষমতা বিভিন্ন দিকে যত বেশিই হোক না কেন, তা সীমাবদ্ধ অসীম ক্ষমতা কোন মানুষেরই নেই মানুষ তার দাবি করতে পারে না সেজন্য প্রত্যেক মানুষই কোন অসীম ক্ষমতা সম্পন্ন সত্তার আশ্রয় নিতে, তার মর্জির নিকট নিজকে একান্তভাবে সোপর্দ করে দিতে বাধ্য হয় এরূপ শক্তির আধার হিসেবে যারা আল্লাহকে স্বীকার করে, তারা আল্লাহর প্রতি ঈমানদার অন্য শক্তির অস্বীকারকারী; পক্ষান্তরে যারা আল্লাহকে স্বীকার করে না, স্বীকার করে কোন দেব-দেবী, কোন মৃত বা জীবিত পীর বুজুর্গ কিংবা কোন রাষ্ট্র শক্তি বা কোন বিভাগীয় প্রধানকে, তারা তাদেরই প্রতি ঈমানদার; আর আল্লাহর প্রতি কাফির দুনিয়ার বিপদ আপদ হতে রক্ষা পাওয়ার জন্য বৈষয়িক ক্ষেত্রে সঠিক উন্নতি লাভ করার উদ্দেশ্যে উল্লেখিত প্রত্যেক ঈমানদার ব্যক্তিরা তাদের মা'বুদের নিকট আশ্রয় সাহায্য প্রার্থনা করতে বাধ্য তাদের মনস্তাত্ত্বিক দিক দিয়ে এটা যেমন সত্য, তেমনি সত্য বাস্তব দিক দিয়েও এরূপ সাহায্য আশ্রয় ব্যতীত মানুষ বিপদ হতে উদ্ধার পেতে পারে না মানুষ যখন নিজের অক্ষমতা অসহায়তা তীব্রভাবে অনুভব করে, মনের ঐকান্তিক তাগিদেই সে এক মহানুভব অসিম শক্তির সমীপে আত্মনিবেদিত হতে তাঁর প্রত্যেক্ষ সাহায্য প্রার্থনা করতে একান্তভাবেই বাধ্য হয়

তাই আল্লাহর বান্দা এখানে ঘোষণা করছে যে, যেহেতু আল্লাহ ছাড়া কোন হক্ক মাবুদ নেই-থাকতে পারে না, সেজন্য আমি আল্লাহর বন্দেগী কবুল করেছি অন্যভাবে বলা যায়, প্রকৃত সাহায্য করার বিপদ-আপদে আশ্রয় দান করারও কোন অধিকার এবং ক্ষমতা আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো নেই সেজন্য সাহায্য আশ্রয়- হে আল্লাহ তোমারই নিকট প্রার্থনা করছি এবং ঘোষণা করছি যে, এই দুনিয়ার যেখানে যেখানে আল্লাহ ছাড়া অন্য কোন সাহায্যকারী আশ্রয়দাতা সেজে দাঁড়িয়ে আছে, তাদের সবাই মিথ্যাবাদী ধোঁকাবাজ এবং যেসব লোক আল্লাহকে ত্যাগ করে অপর কোন সত্তার নিকট সাহায্য পাওয়ার আশায় তাদেরই পদতলে মাথা লুটাচ্ছে, তারা সব ভ্রান্ত পথভ্রষ্ট আপনার সাহায্য ব্যতীত আমি ইবাদাতটুকুও সঠিকভাবে করতে পারবো না আপনার সাহায্য পেলেই তবে আমি শয়তানের কবল থেকে মুক্ত থাকতে পারব আপনার সাহায্যে আমি আমার নফসের খারাপ আহ্বান থেকে মুক্ত থাকতে পারব সুতরাং একমাত্র আপনার কাছে সাহায্য চাই আর কারো কাছে নয়

আল্লাহর ইবাদত তাঁর সাহায্য গ্রহণের ক্ষেত্রে মানুষ সাধারণতঃ চার দিনে বিভক্ত: তাদের একমাত্র আল্লাহর ইবাদত করে এবং তাঁর কাছেই সাহায্য চায় তারা হচ্ছে প্রকৃত ঈমানদার দ্বিতীয় দলটি একমাত্র ইবাদত করে সত্য কিন্তু আল্লাহর প্রদর্শিত পদ্ধতির সাহায্য গ্রহণের পাশাপাশি অন্য কিছুর সাহায্য গ্রহণ করে তারা গুনাহগার উম্মত তৃতীয় দলটি আল্লাহ ছড়া অন্য কিছুরও ইবাদাত করে থাকে কিন্তু তারা আল্লাহর কাছে সাহায্য চায় এরা আরবের মুশরিকদের মত যারা আল্লাহ ছাড়া অন্যান্যদের ইবাদাত করে থাকে, কিন্তু তারা বিপদে পড়লে আল্লাহর সাহায্য চায় চতুর্থ গোলটি এমন যারা আল্লাহর ইবাদতও করে না, তার কাছে সাহায্যও চায় না তারা হচ্ছে নাস্তিক যিন্দীক [মাদারিজুস সাকেলীন]



মন্তব্য