ঈমান

কিয়ামতের বড় আলামত। প্রসঙ্গঃ দাজ্জাল। পর্ব-১

Alorpath 3 weeks ago Views:618

দাজ্জালের ফেতনাটি নিঃসন্দেহে পৃথিবীর ইতিহাসে সর্ববৃহৎ ফেতনা। সকল নবী-রাসূল স্ব স্ব উম্মতকে তার ব্যাপারে সতর্ক করতেন।


আল্লাহ পাক -যখন, যেভাবে, যেখানে, যে নিদর্শনটি ঘটাতে চান, তখন সেভাবে সেখানে সেই নিদর্শনটি-ই ঘটবে।
তন্মধ্যে একটি হচ্ছে দাজ্জাল।

• কে এই মাছীহুদ দাজ্জাল?
• সে কি বর্তমানে জীবিত?
• ইতিপূর্বে কেউ তাকে দেখেছে?
• তার দৈহিক বৈশিষ্ট্য কি?
• আবির্ভাবের কারণ কি?
• কি সেই মহা-ক্রোধ?
• কতিপয় ভ্রান্ত প্রচারণা

সে আদম সন্তানের-ই একজন। মুমিনদের পরীক্ষার জন্য আল্লাহ পাক তাকে অলৌকিক কিছু বৈশিষ্ট্য দেবেন। তার দৈহিক ও চরিত্রগত গুণাবলী বর্ণনা করে নবী করীম সা. স্বীয় উম্মতকে তার থেকে বেঁচে থাকার আদেশ করেছেন।

দাজ্জাল সম্পর্কে আমাদের বলতে হবে, কারণঃ
জ্ঞান-ই উত্তরণের একমাত্র পথ। ফেতনা গ্রাস করে ফেলবে- এই ভয়ে হুযায়ফা ইবনুল ইয়ামান রা. সবসময় নবীজীর কাছে অনিষ্টকর ফেতনার ব্যাপারে জিজ্ঞেস করতেন।
দাজ্জালের ফেতনাটি নিঃসন্দেহে পৃথিবীর ইতিহাসে সর্ববৃহৎ ফেতনা। সকল নবী-রাসূল স্ব স্ব উম্মতকে তার ব্যাপারে সতর্ক করতেন। শেষনবী মুহাম্মদ মুস্তফা সা, তার ব্যাপারে বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে উম্মতকে বারংবার সতর্ক করে গেছেন।


সুতরাং দাজ্জালের বৈশিষ্ট্য, ফেতনা ও বাঁচার উপায় জানা থাকলেই আল্লাহ পাক আপনাকে আমাকে সকলকে তার অনিষ্টতা থেকে রক্ষা করবেন ইনশাল্লাহ।

“মাছীহুদ দাজ্জাল” নামকরণঃ
আরবী মাছীহ শব্দের অর্থ- বিকৃত করে দেয়া হয়েছে, মােছে দেয়া হয়েছে এমন। তার বাম চক্ষুটি বিকৃত ও মােছিত হবে। কানা, সবকিছু একচোখে দেখবে।

অনেকে বলেছেন যে, সঠিক শব্দটি আসলে “মিছছীহ বা মিছছীখ।আরবীতে শব্দের আরেকটি অর্থ হচ্ছে- ঘুরাফেরা করা, ভ্রমণ করা। এ হিসেবে অনেকেই বলেছেন যে, দাজ্জাল যেহেতু সারাবিশ্ব ভ্রমণ করবে, তাই তাকে মাছীহ (অতি ভ্রমণকারী) বলা হয়ে থাকে। কেউ কেউ বলেছেন যে, তার চেহারার এক পার্শ্ব ভ্র ও চক্ষুবিহীন হবে।


অপরদিকে দাজ্জাল এসেছে আরবী শব্দ দাজাল থেকে। যার অর্থ- সত্য ঢেকে দেয়া, ছদ্ম আবরণে লুকিয়ে রাখা, প্রতারিত করা, মিথ্যা বলা ইত্যাদি। দাজ্জাল শব্দের প্রসিদ্ধ অর্থ হচ্ছে মহা-মিথুক।


-চলবে।



মন্তব্য